× ই-পেপার প্রচ্ছদ বাংলাদেশ রাজনীতি দেশজুড়ে বিশ্বজুড়ে বাণিজ্য খেলা বিনোদন মতামত চাকরি ফিচার চট্টগ্রাম ভিডিও সকল বিভাগ ছবি ভিডিও লেখক আর্কাইভ কনভার্টার

যৌবন হারিয়ে ‘পরিত্যক্ত’ দেশের প্রথম রেলস্টেশন

জহুরুল ইসলাম, কুষ্টিয়া

প্রকাশ : ১৫ নভেম্বর ২০২৩ ১০:০০ এএম

আপডেট : ১৫ নভেম্বর ২০২৩ ১০:৪৬ এএম

অযত্নে অবহেলায় পড়ে আছে কুষ্টিয়ার জগতি রেলস্টেশনের অবকাঠামো। প্রবা ফটো

অযত্নে অবহেলায় পড়ে আছে কুষ্টিয়ার জগতি রেলস্টেশনের অবকাঠামো। প্রবা ফটো

রাতে জ্বলত চকচকে আলো। মানুষের কোলাহলপূর্ণ থাকত পুরো এলাকা। নিয়মিত নির্দিষ্ট সময়ে বাজত লোহার ঘণ্টা আর গার্ডের হুইসেল। ট্রেন থেকে মাল ওঠাতে-নামাতে ব্যস্ত থাকতেন কুলিরা। কিন্তু এসবই আজ ইতিহাস। আর আগের মতো এসব কিছুই হয় না। বরং অযত্ন আর অবহেলায় জরাজীর্ণ হয়ে পড়ে আছে। রাত নামলে নেশার ঝাঁপি খুলে বসে এলাকার বখাটেরা। বলছি কুষ্টিয়ার জগতি রেলস্টেশনের কথা। এটি দেশের প্রথম রেলস্টেশন।

দেশে রেলওয়ের কার্যক্রম শুরু হয় ব্রিটিশ শাসনামলে- ১৮৬২ সালে। শুরুতে শুধু অর্থনৈতিক কাজের জন্য রেললাইন চালু করা হয়। ইস্টার্ন বেঙ্গল রেলওয়ে নামের একটি প্রতিষ্ঠান প্রথম রেললাইন স্থাপনের কাজ করে। প্রতিষ্ঠানটি ১৮৬২ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর কলকাতা থেকে রানাঘাট রেললাইন স্থাপন করে। পরের বছরের ১৫ নভেম্বর রানাঘাট থেকে কুষ্টিয়ার জগতি পর্যন্ত রেলপথ চালু করে। শহর থেকে কয়েক কিলোমিটার দূরে ৩০০ বিঘা জমি নিয়ে নান্দনিক দোতলা ভবনসহ স্টেশনটি নির্মাণ করা হয়। 

পরে এই রেললাইন গোয়ালন্দ ঘাট পর্যন্ত বিস্তৃত হয়। এই পথে কলকাতা থেকে যাত্রী আর মালামাল এসে নামত গোয়ালন্দ ঘাটে। সেখান থেকে স্টিমারে পদ্মা পার হয়ে ঢাকাসহ আশপাশের এলাকায়। জরাজীর্ণ জগতি রেলস্টেশন এখন শুধুই ইতিহাস। আজ ১৫ নভেম্বর এই রেলস্টেশনের বয়স ১৬২ বছর হলো।

সরেজমিন দেখা গেছে, স্টেশনে লাল ইটের একটি দালান। ইটের রং অনেকটা ফিকে গেছে। আশপাশে ঘাস আর ছোট ছোট আগাছায় ভরে আছে। ছাদে ধরেছে শ্যাওলা, জন্মেছে পাকুড় গাছ। দালানের মধ্যে সেই সময়ের কিছু আসবাবপত্র জরাজীর্ণ হয়ে পড়ে আছে। টেলিফোনগুলো অকেজো হয়ে আছে। ঘণ্টাটি ঝুলানো আছে তালাবদ্ধ স্টেশন মাস্টারের কক্ষের সামনে। এসব আর ব্যবহার করা হয় না। তবে কক্ষটি মাঝে মধ্যে খোলা হয় বলে জানালেন গেটম্যান আব্দুর রাজ্জাক। সেখানে রাখা হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর করেন তিনি। 

আব্দুর রাজ্জাক বলেন, অফিসিয়ালি কোনো ট্রেন থামে না জগতি স্টেশনে। তবে দিনে একটি লোকাল ট্রেন রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ থেকে পোড়াদহ জংশন পর্যন্ত আসা-যাওয়া করে। আর খুলনা থেকে গোয়ালন্দগামী একটি মেইল ট্রেন সকালে এসে বিকালে ছেড়ে যায়। কয়েক মিনিটের জন্য থামে এ দুটি ট্রেন। 

স্টেশনটির জমিতে রয়েছে বড় বড় তিনটি পুকুর। আম, কাঁঠালসহ অন্যান্য গাছ রয়েছে ৪০০ থেকে ৫০০টি। এসব পুকুর ও গাছ লিজ দেওয়া হয়। উত্তর দিকে ফরজ আলীর চায়ের দোকান। তিনি ১৩ বছর বয়সে পাকিস্তান আমলে জগতি স্টেশনে পাম্প অপারেটর পদে চাকরি নেন। তার বয়স এখন ৭০। তিনি বলেন, ফরজ আলীর সে সময় স্টিম ইঞ্জিনের (কয়লাচালিত) ট্রেন চলাচল করত। আমার কাজ ছিল ইঞ্জিনে পানি দেওয়া। স্টেশনের পাশেই দুটি সুউচ্চ পানির টাওয়ার ট্যাংক এখনও আছে। 

স্থানীয় ভ্যানচালক আজহার আলী বলেন, ‘রাত হলে এখানে ভুতুড়ে পরিবেশ সৃষ্টি হয়। এলাকার খারাপ লোকজন এখানে বসে নেশা করে।’

হজরত আলী নামের একজন যাত্রী বলেন, দেশের ঐতিহাসিক একটি স্থাপনাটি সংরক্ষণের দায়িত্ব সরকারের। বিশাল জায়গা পড়ে আছে। সুন্দর প্রাকৃতিক পরিবেশ, মানুষ ঘুরতে আসে। স্টেশনটি সংস্কার পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তুললে দেশ-বিদেশের অনেকই আসত। 

কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক এহেতেশাম রেজা বলেন, ‘বিষয়টি রেলওয়ে কর্তৃপক্ষসহ সরকারের ঊর্ধ্বতন মহলে অবহিত করা হবে। এ ছাড়া রেল মন্ত্রণালয় এখানে জাদুঘরসহ অন্যান্য যে স্থাপনা করার প্রকল্প নিয়েছে। সেটি যাতে দ্রুত বাস্তবায়ন হয় সে ব্যাপারে সব ধরনের প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।’ 

শেয়ার করুন-

মন্তব্য করুন

Protidiner Bangladesh

সম্পাদক : মুস্তাফিজ শফি

প্রকাশক : কাউসার আহমেদ অপু

রংধনু কর্পোরেট, ক- ২৭১ (১০ম তলা) ব্লক-সি, প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড) ঢাকা -১২২৯

যোগাযোগ

প্রধান কার্যালয়: +৮৮০৯৬১১৬৭৭৬৯৬ । ই-মেইল: protidinerbangladesh.pb@gmail.com

বিজ্ঞাপন (প্রিন্ট): +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ । ই-মেইল: pbad2022@gmail.com

বিজ্ঞাপন (অনলাইন): +৮৮০১৭৯৯৪৪৯৫৫৯ । ই-মেইল: pbonlinead@gmail.com

সার্কুলেশন: +৮৮০১৭১২০৩৩৭১৫ । ই-মেইল: pbcirculation@gmail.com

বিজ্ঞাপন মূল্য তালিকা