× ই-পেপার প্রচ্ছদ বাংলাদেশ রাজনীতি দেশজুড়ে বিশ্বজুড়ে বাণিজ্য খেলা বিনোদন মতামত চাকরি ফিচার চট্টগ্রাম ভিডিও সকল বিভাগ ছবি ভিডিও লেখক আর্কাইভ কনভার্টার

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ

আনভীরের নির্দেশে আবারও মোশা বাহিনীর তাণ্ডব

প্রবা প্রতিবেদক

প্রকাশ : ১১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ০৯:০৮ এএম

আপডেট : ১২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ১৩:০৯ পিএম

বাঁয়ে সায়েম সোবহান আনভীর ও ডানে মোশারফ হোসেন মোশা। ছবি কোলাজ : প্রবা

বাঁয়ে সায়েম সোবহান আনভীর ও ডানে মোশারফ হোসেন মোশা। ছবি কোলাজ : প্রবা

ভূমিদস্যু বসুন্ধরা গ্রুপের এমডি সায়েম সোবহান আনভীরের নির্দেশে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের নাওড়া গ্রামের সাধারণ মানুষের ওপর মোশা বাহিনীর সন্ত্রাসীরা আবারও তাণ্ডব চালিয়েছে। শনিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় উপজেলার কায়েতপাড়া ইউনিয়নের নাওড়া এলাকায় এ তাণ্ডব চালায় তারা।

নিরীহ মানুষের জমি জবরদখলে ব্যর্থ হয়ে এবং প্রতিবাদ করায় আনভীরের নির্দেশে বসুন্ধরা গ্রুপের গানম্যান, সিকিউরিটি গার্ড ও মোশা বাহিনীর যৌথ হামলায় ৮ জন গুলিবিদ্ধসহ আহত হয়েছেন কমপক্ষে ১৬ জন। আহতদের মধ্যে দুজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গেছে। আহতরা সবাই গ্রামের সাধারণ মানুষ। এর আগে গত ১২ দিনে আরও দুই দফায় হামলা করেছে মোশা বাহিনী। যেকোনো সময়ে আরও হামলার আতঙ্কে দিন কাটছে গ্রামের সাধারণ মানুষের।

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গতকাল বিকালে উপজেলার কায়েতপাড়া ইউনিয়নের নাওড়া গ্রামে আনভীরের নির্দেশে শাহিনা আক্তারের জমি দখল করতে আসে একদল দুর্বৃত্ত। এই সময়ে বাধা দেয় গ্রামবাসী। পরে সন্ধ্যায় আনভীরের নির্দেশে বসুন্ধরা গ্রুপের প্রায় অর্ধশত অস্ত্রধারী এবং হত্যা, ধর্ষণ, মাদকসহ ৪৫ মামলার আসামি শীর্ষ সন্ত্রাসী মোশারফ হোসেন ওরফে মোশা এবং তার বাহিনীর সদস্য নিরব, স্বাধীন, সাখাওয়াত উল্লাহ, আব্বাস, নাজমুল, রুবেল, আনোয়ার, জয়নাল, তাজেল, রিফাত, রায়হান, আলহাদি, জাগু, বুটটু, চোরা দুলাল, আব্দুল, আরমানসহ ৫০-৬০ সন্ত্রাসী পিস্তল, শটগান, টেঁটা, বল্লম, জুইতা, রামদা, চাপাতি, চায়নিজ কুড়ালসহ বিভিন্ন দেশি-বিদেশি অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে নিরীহ গ্রামবাসীর ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে। 

নাওড়া এলাকার নিরীহ প্রতিবাদী গ্রামবাসীর ভাষ্য, তাদের ওপর পূর্বপরিকল্পিতভাবে এ হামলা চলানো হয়। এ সময় গ্রামের নারী-পুরুষ থেকে শুরু করে শিশু ও বৃদ্ধরা আতঙ্কিত হয়ে পড়ে। মোশা বাহিনী গ্রামবাসীকে লক্ষ করে এলোপাতাড়ি গুলি ছোড়ে। এ ছাড়াও তারা ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করে।

হামলায় রুবেল মিয়া, নাঈম মিয়া, নূর হোসেন, হানিফ মিয়া, জাহিদ হাসান, ইয়াকুব আলীসহ আটজন গুলিবিদ্ধসহ অন্তত ১৬ জন আহত হয়েছে বলে জানা গেছে। আহতদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। আহতদের মধ্যে রুবেল মিয়া ও হানিফ মিয়ার অবস্থা আশঙ্কাজনক। 

হামলার এক পর্যায়ে গ্রামবাসী আত্মরক্ষায় মোশা বাহিনীকে পাল্টা ধাওয়া দেয়। খবর পেয়ে রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দীপঙ্কর চন্দ্র সাহার নেতৃত্বে বিপুল পরিমাণ পুলিশ সদস্য ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করলেও পুলিশকে লক্ষ করেও মোশা বাহিনী ইটপাটকেল নিক্ষেপ শুরু করে। 

গ্রামবাসীর অভিযোগ, ভূমিখেকো আনভীর প্রায় সময় তার লোকজন দিয়ে নাওড়া এলাকায় জমি দখল করেন। রাতারাতি লাল দেয়াল তুলে দিয়ে সাইনবোর্ড টাঙিয়ে দেন। আর এই কাজে প্রধান হাতিয়ার হিসেবে কাজ করে শীর্ষ সন্ত্রাসী মোশা ও তার বাহিনী। বসুন্ধরা গ্রুপের আশ্রয়ে মোশা এবং তার বাহিনী আবারও বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। এলাকায় আধিপত্য বিস্তার করে নিরীহ গ্রামবাসীর জমি জবরদখল করতে তারা উঠেপড়ে লেগেছে। মোশা বাহিনীর অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে গ্রামের সাধারণ মানুষ। জমিদখলে বাধা দিলেই দেওয়া হয় বিভিন্ন হুমকি। এতেও কাজ না হলে চলে এমন বর্বর হামলা। মোশাসহ তার বাহিনীর সদস্যদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে প্রশাসনের কাছে জোর দাবি জানায় নাওড়া গ্রামের সাধারণ মানুষ। ভূমিদস্যু আনভীর ও শীর্ষ সন্ত্রাসী মোশার শাস্তি দাবি করেছে তারা। 

রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দীপঙ্কর চন্দ্র সাহা বলেন, সংঘর্ষের সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করার চেষ্টা চালানো হয়। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। 

শেয়ার করুন-

মন্তব্য করুন

Protidiner Bangladesh

সম্পাদক : মুস্তাফিজ শফি

প্রকাশক : কাউসার আহমেদ অপু

রংধনু কর্পোরেট, ক- ২৭১ (১০ম তলা) ব্লক-সি, প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড) ঢাকা -১২২৯

যোগাযোগ

প্রধান কার্যালয়: +৮৮০৯৬১১৬৭৭৬৯৬ । ই-মেইল: protidinerbangladesh.pb@gmail.com

বিজ্ঞাপন (প্রিন্ট): +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ । ই-মেইল: pbad2022@gmail.com

বিজ্ঞাপন (অনলাইন): +৮৮০১৭৯৯৪৪৯৫৫৯ । ই-মেইল: pbonlinead@gmail.com

সার্কুলেশন: +৮৮০১৭১২০৩৩৭১৫ । ই-মেইল: pbcirculation@gmail.com

বিজ্ঞাপন মূল্য তালিকা