× ই-পেপার প্রচ্ছদ বাংলাদেশ রাজনীতি দেশজুড়ে বিশ্বজুড়ে বাণিজ্য খেলা বিনোদন মতামত চাকরি ফিচার চট্টগ্রাম ভিডিও সকল বিভাগ ছবি ভিডিও লেখক আর্কাইভ কনভার্টার

কিছু অনিয়মকারীদের কারণে অবৈধ ভবন গড়ে উঠছে : কেডিএ চেয়ারম্যান

খুলনা প্রতিবেদক

প্রকাশ : ১৪ মার্চ ২০২৪ ২১:৪৭ পিএম

আপডেট : ১৪ মার্চ ২০২৪ ২২:১৪ পিএম

বৃহস্পতিবার দুপুরে কেডিএর মিলনায়তনে মতবিনিময় সভায় ৫৩ জন জমির মালিকের অনুমোদিত নকশা তুলে দেওয়া হয়। প্রবা ফটো

বৃহস্পতিবার দুপুরে কেডিএর মিলনায়তনে মতবিনিময় সভায় ৫৩ জন জমির মালিকের অনুমোদিত নকশা তুলে দেওয়া হয়। প্রবা ফটো

খুলনা নগরীর জমির মালিকদের অনুমোদিত নকশা অনুযায়ী ভবন নির্মাণ করার আহ্বান জানিয়েছেন খুলনা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (কেডিএ) চেয়ারম্যান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এসএম মিরাজুল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘নগরীতে প্রতিটি মসজিদ, মাদ্রাসা, মন্দির ও গির্জার অনুমোদিত নকশা থাকতে হবে। কেডিএর প্ল্যান অনুযায়ী আইন মেনে ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানেরও ভবন নির্মাণ করা খুবই জরুরি।’ 

বৃহস্পতিবার (১৪ মার্চ) দুপুরে কেডিএর মিলনায়তনে ভবন নির্মাণের জন্য জমির অনুমোদিত নকশা গ্রহণকারী এবং নকশা প্রণয়নকারী ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে মতবিনিময়কালে কেডিএ চেয়ারম্যান এসব কথা বলেন। সভায় ৫৩ জন জমির মালিকের অনুমোদিত নকশা তাদের হাতে তুলে দেওয়া হয়।

কেডিএ চেয়ারম্যান বলেন, ‘কেডিএতে কিছু অনিয়মকারী প্রেতাত্মা রয়েছে, যাদের কারণে জমির মালিকরা নকশার অনুমোদনের পরেও সঠিকভাবে ভবন নির্মাণ করছেন না। অননুমোদিতভাবে অবৈধ ভবন গড়ে তোলা হচ্ছে। এতে মহানগরীজুড়ে বাড়িঘর ও হাইরাইজ ভবনের জঞ্জালের সৃষ্টি হচ্ছে। তাদের থেকে দূরে থাকবেন। বাসযোগ্য মহানগরী গড়তে নকশাবহির্ভূত কোনো ভবনের অনুমোদন কেডিএ দেবে না। অনুমোদনের বাইরে গিয়ে ভবন নির্মাণ করলে একপর্যায়ে ওই ভবন কেডিএ অপসারণ করবেই। এতে কোনো ছাড় দেওয়ার সুযোগ আইনে নেই।’

মিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘কেডিএ এখন সম্পূর্ণ ডিজিটাল পদ্ধতিতে সেবামূলক কাজগুলো করে যাচ্ছে। আপনাদের আবেদনের নথি কার কাজে আছে, তা কেন অনুমোদন হচ্ছে না, তা আপনি কেডিএর ওয়েবসাইটে সার্চ করলেই সহজে জানতে পারবেন। সুতরাং কেডিএর সেবা পেতে কোনো দালালের দ্বারস্থ হবেন না।’

তিনি বলেন, ‘প্রায় পাঁচ মাস আগে কেডিএর সফটওয়্যার চালু করা হয়েছে। এর পর থেকে এ পর্যন্ত ১২ শতাধিক নকশার অনুমোদন কেডিএ দিয়েছে। প্রতিটি আবেদনই দ্রুত সমাধান করা হয়। নকশার জন্য পরিপূর্ণ আবেদন অনুমোদন করতে কেডিএর ১৫-৩০ দিন লাগে। তার বেশি লাগবে না।’ এ সময়ের বেশি সময় কেউ নিলে সরাসরি চেয়ারম্যানের কাছে অভিযোগ জানাতে সবার প্রতি আহ্বান জানান। তিনি সবাইকে আরও দায়িত্বশীল হয়ে পরিকল্পিত নগরী গড়তে সহযোগিতার আহ্বান জানান। 

মতবিনিময় সভায় কেডিএ সদস্য শবনম সাবা, অথরাইজড অফিসার জিএম মাসুদুর রহমান, প্ল্যানিং অফিসার তানভীর আহমেদ, শামীম জেহাদসহ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার করুন-

মন্তব্য করুন

Protidiner Bangladesh

সম্পাদক : মুস্তাফিজ শফি

প্রকাশক : কাউসার আহমেদ অপু

রংধনু কর্পোরেট, ক- ২৭১ (১০ম তলা) ব্লক-সি, প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড) ঢাকা -১২২৯

যোগাযোগ

প্রধান কার্যালয়: +৮৮০৯৬১১৬৭৭৬৯৬ । ই-মেইল: protidinerbangladesh.pb@gmail.com

বিজ্ঞাপন (প্রিন্ট): +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ । ই-মেইল: pbad2022@gmail.com

বিজ্ঞাপন (অনলাইন): +৮৮০১৭৯৯৪৪৯৫৫৯ । ই-মেইল: pbonlinead@gmail.com

সার্কুলেশন: +৮৮০১৭১২০৩৩৭১৫ । ই-মেইল: pbcirculation@gmail.com

বিজ্ঞাপন মূল্য তালিকা