× ই-পেপার প্রচ্ছদ বাংলাদেশ রাজনীতি দেশজুড়ে বিশ্বজুড়ে বাণিজ্য খেলা বিনোদন মতামত চাকরি ফিচার ভিডিও সকল বিভাগ ছবি ভিডিও লেখক আর্কাইভ কনভার্টার

পেনশন ওয়েবসাইটে কারিগরি ত্রুটি

প্রবা প্রতিবেদক

প্রকাশ : ২০ আগস্ট ২০২৩ ১০:১০ এএম

আপডেট : ২০ আগস্ট ২০২৩ ১৪:০২ পিএম

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

দেশের নাগরিকদের পরিণত বয়সে আর্থিক নিরাপত্তা দিতে সর্বজনীন পেনশন কর্মসূচি (স্কিম) চালু করছে সরকার। দীর্ঘ প্রতীক্ষার পরও সরকারের এ উদ্যোগকে সাধুবাদ জানাচ্ছেন নাগরিকরা। তবে ওয়েবসাইটের মাধ্যমে রেজিস্ট্রেশন করতে কারিগরি সমস্যায় পড়তে হচ্ছে অনেককে। ফলে ইচ্ছা সত্ত্বেও তারা রেজিস্ট্রেশন করতে পারেননি।

রাজধানীর মিরপুরের বাসিন্দা শাকিল আহমেদ। কাজ করেন একটি বেসরকারি ব্যাংকে। শেষ বয়সের আর্থিক নিরাপত্তার জন্য পেনশন ওয়েবসাইটে রেজিস্ট্রেশন করতে গিয়ে পড়েছেন কারিগরি জটিলতায়। প্রতিদিনের বাংলাদেশের সঙ্গে কথা হলে শাকিল আহমেদ বলেন, ‘আমি সর্বজনীন পেনশনে আমার নমিনি করতে চাই আমার ৯ বছরের মেয়েকে। কিন্তু তার তো আর এনআইডি কার্ড নেই। তাই নমিনি করতে মেয়েকে জন্মনিবন্ধনের তথ্য দিতে গিয়ে দেখি সেখানে কাজ করছে না। ওখানে পাসপোর্টের তথ্যও দেওয়া যাচ্ছে না। তাই রেজিস্ট্রেশন করতে না পেরে আপাতত বাদ রেখেছি, পরে করব।’

এদিকে ওয়েবসাইটে সব তথ্য দিয়েও রেজিস্ট্রেশন করতে পারেননি আশুলিয়ার বেসরকারি চাকরিজীবী জাহিদুল ইসলাম। শেষ বয়সে বেশিরভাগ মানুষকেই তাদের সন্তানদের ওপর নির্ভরশীল হতে হয়। ছেলেমেয়ে ভালো না হলে বা তাদের আর্থিক অবস্থা ভালো না হলে শেষ জীবনে অনেক কষ্ট করতে হয়। তাই সরকার যে উদ্যোগ নিয়েছে, সেটা খুবই ভালো। এখন আর কাউকে কারও ওপর নির্ভরশীল হতে হবে না বলে তিনি জানান। 

তবে পেনশন ওয়েবসাইটে রেজিস্ট্রেশন করতে না পেরে হতাশা প্রকাশ করে বলেন, ‘নিজের, ব্যাংকের এবং নমিনির সকল তথ্য বেশ কয়েকবার চেষ্টা করেও সাবমিট করতে পারিনি।’ 

ওয়েবসাইটে সমস্যার বিষয়ে জানতে জাতীয় পেনশন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান (অতিরিক্ত সচিব) কবিরুল ইজদানি খান প্রতিদিনের বাংলাদেশকে বলেন, ‘ওয়েবসাইটে তথ্য দিতে নাগরিকদের কিছু সমস্যা হচ্ছে। আমাদের আইটি টিম কাজ করছে। আশা করছি, দ্রুতই সমস্যাগুলোর সমাধান হবে।’ 

প্রসঙ্গত, গত বৃহস্পতিবার সর্বজনীন পেনশন কর্মসূচির উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। উদ্বোধনের পর থেকে ব্যাপক সাড়া পড়েছে বলে জানা গেছে। উদ্বোধনের দিনই অন্তত ৮ হাজার মানুষ নিবন্ধন করেছে। এর মধ্যে ১ হাজার ৭০০ জন আবেদনের পুরো প্রক্রিয়া শেষ করে চাঁদা পরিশোধ করেছে বলে জানা গেছে।

সর্বজনীন পেনশন কর্মসূচি বা স্কিমে অন্তর্ভুক্ত হলে ৬০ বছর বয়সের পর থেকে আজীবন পেনশন সুবিধা পাবেন একজন চাঁদাদাতা। তবে তিনি মারা গেলে তার নমিনি বা উত্তরাধিকারী এ পেনশন পাবেন। এক্ষেত্রে চাঁদাদাতার ৭৫ বছর বয়স হতে যত দিন বাকি থাকবে, সে সময় পর্যন্ত নমিনি পেনশন উত্তোলন করতে পারবেন।

সর্বজনীন পেনশনের আওতায় আপাতত চার ধরনের স্কিম চালু করা হয়েছে। এর মধ্যে প্রবাসীদের জন্য প্রবাস, বেসরকারি চাকরিজীবীদের জন্য প্রগতি, অনানুষ্ঠানিক খাত অর্থাৎ স্বকর্মে নিয়োজিত নাগরিকদের জন্য সুরক্ষা আর নিম্ন আয়ের মানুষের জন্য থাকছে সমতা স্কিম। 

শেয়ার করুন-

মন্তব্য করুন

Protidiner Bangladesh

সম্পাদক : মুস্তাফিজ শফি

প্রকাশক : কাউসার আহমেদ অপু

রংধনু কর্পোরেট, ক- ২৭১ (১০ম তলা) ব্লক-সি, প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড) ঢাকা -১২২৯

যোগাযোগ

প্রধান কার্যালয়: +৮৮০৯৬১১৬৭৭৬৯৬ । ই-মেইল: [email protected]

বিজ্ঞাপন (প্রিন্ট): +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ । ই-মেইল: [email protected]

বিজ্ঞাপন (অনলাইন): +৮৮০১৭৯৯৪৪৯৫৫৯ । ই-মেইল: [email protected]

সার্কুলেশন: +৮৮০১৭১২০৩৩৭১৫ । ই-মেইল: [email protected]

বিজ্ঞাপন মূল্য তালিকা