× ই-পেপার প্রচ্ছদ বাংলাদেশ রাজনীতি দেশজুড়ে বিশ্বজুড়ে বাণিজ্য খেলা বিনোদন মতামত চাকরি ফিচার চট্টগ্রাম ভিডিও সকল বিভাগ ছবি ভিডিও লেখক আর্কাইভ কনভার্টার

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

মনোনয়নে রেকর্ড গড়লেও জয়ে পিছিয়ে নারী প্রার্থীরা

ফারহানা বহ্নি

প্রকাশ : ০৯ জানুয়ারি ২০২৪ ০৮:৫০ এএম

আপডেট : ০৯ জানুয়ারি ২০২৪ ১০:৫৬ এএম

সংসদ ভবন। ফাইল ছবি

সংসদ ভবন। ফাইল ছবি

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি নারী প্রার্থী ৯৫ জন অংশ নিয়েছেন আর জয় পেয়েছেন ১৯ জন। আওয়ামী লীগের ১৫ জন নারী আর স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে ৪ জন। স্বতন্ত্রভাবে জয়ী চার নারীই আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। গতবার একাদশ জাতীয় সংসদে সরাসরি ভোটে নির্বাচিত নারী সংসদ সদস্য রয়েছেন ২২ জন। সেই হিসাবে দ্বাদশ সংসদে নারী সংসদ সদস্যের সংখ্যা কমেছে।

আওয়ামী লীগের জয়ী নারী প্রার্থীরা হলেন বর্তমান সংসদের প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা (গোপালগঞ্জ-৩), স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী (রংপুর-৬), উম্মে কুলসুম স্মৃতি (গাইবান্ধা-৩), সাহাদারা মান্নান (বগুড়া-১), জান্নাত আরা হেনরী (সিরাজগঞ্জ-২), হাবিবুন নাহার (বাগেরহাট-৩), সুলতানা নাদিরা (বরগুনা-২), আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডরীর সদস্য মতিয়া চৌধুরী (শেরপুর-২), রুমানা আলী (গাজীপুর-৩), সৈয়দা জাকিয়া নূর (কিশোরগঞ্জ-১), সাগুফতা ইয়াসমিন (মুন্সীগঞ্জ-২), সিমিন হোসেন রিমি (গাজীপুর-৪), শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি (চাঁদপুর-৩), খাদিজাতুল আনোয়ার (চট্টগ্রাম-২) ও শাহীন আক্তার (কক্সবাজার-২)।

গোপালগঞ্জ-৩ আসনে শেখ হাসিনা বিপুল ভোটে জয়ী হয়েছেন। এ আসনে মোট কেন্দ্র ১০৮টি। সব কেন্দ্রের ঘোষিত ফলাফলে শেখ হাসিনা নৌকায় ২ লাখ ৪৯ হাজার ৯৬২ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম এনপিপির শেখ আবুল কালামের আম ৪৬০ ভোট পেয়েছে।

রংপুর-৬ আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী আবার বিজয়ী হয়েছেন। তিনি নৌকা নিয়ে ভোট পেয়েছেন ১ লাখ ৮ হাজার ৬৩৫টি। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মো. সিরাজুল ইসলাম স্বতন্ত্র ট্রাক মার্কায় ভোট পেয়েছেন ৩৬ হাজার ৮৩২।

চাঁদপুর-৩ আসনে বিশাল ব্যবধানে জয়ী হয়েছেন নৌকার প্রার্থী শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি। ১৬৫টি কেন্দ্রে দীপু মনি পেয়েছেন ১ লাখ ৮ হাজার ১৬৬ ভোট। অপরদিকে তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র ড. মোহাম্মদ শামছুল হক ভূইয়া (ঈগল) পেয়েছেন ২৪ হাজার ১৯৭ ভোট।

শেরপুর-২ আসনে জাতীয় সংসদের উপনেতা মতিয়া চৌধুরী পেয়েছেন ২ লাখ ১২ হাজার ১৪২ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ঈগল প্রতীকে স্বতন্ত্র প্রার্থী সৈয়দ মুহাম্মদ সাঈদ পেয়েছেন ৫ হাজার ৩৪২ ভোট।

বাগেরহাট-৩ আসনে বন, পরিবেশ ও জলবায়ু পরিবর্তন উপমন্ত্রী হাবিবুন নাহার ৭৫ হাজার ৯৬৮ ভোট পেয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ঈগল প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী ইদ্রিস আলী ইজারদার পেয়েছেন ৫৮ হাজার ২০৪ ভোট।

নিজের ভাইকে হারিয়ে বিজয়ী হয়েছেন নৌকার প্রার্থী জাকিয়া নূর। কিশোরগঞ্জ-১ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী আপন বড় ভাই অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল সৈয়দ শাফায়াতুল ইসলামকে হারিয়ে নৌকার মাঝি ডা. সৈয়দা জাকিয়া নূর লিপি দ্বিতীয়বারের মতো সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। জাকিয়া নূর লিপি ৭৬ হাজার ৭৬২ ভোট পেয়েছেন। অপরদিকে সৈয়দ সাফায়াতুল ইসলাম ঈগল নিয়ে পেয়েছেন ৭৩ হাজার ৯৯৮ ভোট।

বরগুনা-২ আসনে সুলতানা নাদিরা নৌকা প্রতীকে ৪৬ হাজার ৭৭ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। নিকটতম প্রার্থী বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী আন্দোলনের (বিএনএম) আব্দুর রহমান খোকন পেয়েছেন ১ হাজার ২৭ ভোট।

গাজীপুর-৪ আসনে নৌকায় সিমিন হোসেন রিমি পেয়েছেন ৮৯ হাজার ৭২৯ ভোট। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী (ঈগল) কেন্দ্রীয় কৃষক লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য আলম আহমেদ পেয়েছেন ৪৪ হাজার ৪৫ ভোট।

গাজীপুর-৩ আসন থেকে রুমানা আলী ১ লাখ ২৬ হাজার ১৯৬ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. ইকবাল হোসেন ১ লাখ ১৬ হাজার ৭৪ ভোট পেয়েছেন। চট্টগ্রাম-২ আসনে বেসরকারি ফলাফলে বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী খাদিজাতুল আনোয়ার সনি। তিনি পেয়েছেন ১ লাখ ৩৭০ ভোট। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী তরমুজ প্রতীকের স্বতন্ত্র হোসাইন মো. আবু তৈয়ব পেয়েছেন ৩৬ হাজার ৫৮৭ ভোট।

কক্সবাজার-৪ আসনে ১ লাখ ২২ হাজার ৮০ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী শাহীন আক্তার। তিনি ৬০ হাজার ৬৬৪ ও তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী নুরুল বশর পেয়েছেন ১০ হাজার ৬৯ ভোট। বগুড়া-১ আসনে বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী সাহাদারা মান্নান। নৌকা প্রতীকে তার প্রাপ্ত ভোট ৫১ হাজার ৫৩২। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র শাহাজাদী আলম লিপি তবলা প্রতীকে পেয়েছেন ৩৪ হাজার ৯৪ ভোট।

গাইবান্ধা-৩ আসনে উম্মে কুলসুম স্মৃতি ২০ হাজার ৪২০ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। স্বতন্ত্র মফিজুল হক পেয়েছেন ১ হাজার ৪৯৯ ভোট।

সিরাজগঞ্জ-২ আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের ড. জান্নাত আরা হেনরী বেসরকারিভাবে জয়লাভ করেছেন। তিনি ১ লাখ ৮৪ হাজার ৮৫৮ ভোট পেয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আমিনুল ইসলাম ঝন্টু লাঙ্গল প্রতীকে পেয়েছেন ৪ হাজার ৫৮০ ভোট।

মুন্সীগঞ্জ-২ আসনে নৌকা প্রতীক নিয়ে চতুর্থবারের মতো সংসদ সদস্য হয়েছেন অধ্যাপক সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি। প্রাপ্ত ভোট ১ লাখ ১৩ হাজার ৪৪৪। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ট্রাক প্রতীকের স্বতন্ত্র সোহানা তাহমিনা পেয়েছেন ১৪ হাজার ১৯৬।

ময়মনসিংহ-৩ আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নিলুফার আঞ্জুম এগিয়ে রয়েছেন। তবে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের মাঝে ভোটের পার্থক্য এক হাজারেরও কম। এখানে নির্বাচনের ফল ঘোষণা স্থগিত করা হয়েছে।

প্রতিকূলতার মাঝেও চার স্বতন্ত্র নারী প্রার্থী জয়ী

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৬২ জন স্বতন্ত্র প্রার্থীর মধ্যে মাত্র চারজন নারী। নানা প্রতিকূলতার মধ্যেও জয়ী হয়েছেন তারা। অনেক আসনে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছিলেন দলের নেতাকর্মীরা। স্বতন্ত্রদের মধ্যে জয়ী হয়েছেন সুন্দরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের (প্রস্তাবিত) সদস্য ইঞ্জিনিয়ার আব্দুল্লাহ নাহিদ নিগার (গাইবান্ধা-১), বর্তমান সংসদের সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য ও কালকিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি তাহমিনা বেগম (মাদারীপুর-৩), প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের স্ত্রী জয়া সেনগুপ্তা (সুনামগঞ্জ-২) ও আওয়ামী লীগের সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী (হবিগঞ্জ-১)।

স্থানীয় আওয়ামী লীগের দলীয় সমর্থন ছাড়াই হবিগঞ্জ-১ (নবীগঞ্জ-বাহুবল) আসনে জয় পেয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী কেয়া। স্বতন্ত্র ও সাবেক সংরক্ষিত সংসদ সদস্য আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী (ঈগল) ৭৫ হাজার ৫২ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জাতীয় পার্টি মনোনীত এমএ মুনিম চৌধুরী বাবু (লাঙ্গল) পেয়েছেন ৩০ হাজার ৭০৩ ভোট।

মাদারীপুর-৩ (সদর একাংশ, কালকিনি ও ডাসার) আসনে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী ও বর্তমান সংসদ সদস্য আবদুস সোবহান ওরফে গোলাপকে ৩৪ হাজার ৬৬২ ভোটের ব্যবধানে হারিয়েছেন তাহমিনা বেগম। স্বতন্ত্র প্রার্থী (ঈগল) তাহমিনা বেগম পেয়েছেন ৯৬ হাজার ৬৩৩ ভোট। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী সোবহান ৬১ হাজার ৯৭১ ভোট। বিজয়ী তাহমিনা সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য ও কালকিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি।

সুনামগঞ্জ-২ (দিরাই-শাল্লা) আসনে আওয়ামী লীগের প্রয়াত সংসদ সদস্য সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের স্ত্রী জয়া সেনগুপ্ত আওয়ামী লীগের প্রার্থী চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মাহমুদ ওরফে আল আমিন চৌধুরীকে পরাজিত করেছেন। জয়া বর্তমান আইজিপি চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুনের ছোট ভাই মাহমুদকে প্রায় ৮ হাজার ভোটে পরাজিত করেন। নৌকা প্রতীকে মাহমুদ পেয়েছেন ৪২ হাজার ৭৫ ভোট। অন্যদিকে কাঁচি প্রতীকে জয়া পেয়েছেন ৫০ হাজার ২৯৫ ভোট।

গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ) আসনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী দুবারের সংসদ সদস্য ব্যারিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারীকে হারিয়ে মায়ের আসন উদ্ধার করেছেন মেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার আব্দুল্লাহ নাহিদ নিগার। ঢেঁকি প্রতীকে নাহিদ নিগার পেয়েছেন ৬৬ হাজার ৪৯ ভোট। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী লাঙ্গল প্রতীকে ব্যারিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী পেয়েছেন ৪৩ হাজার ৪৯১ ভোট। নাহিদ নিগার সুন্দরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আফরুজা বারীর মেয়ে। নাহিদ নিগার এই আসনের প্রয়াত সংসদ সদস্য মঞ্জুরুল ইসলাম লিটনের ভাগনি।

জোটগত সিদ্ধান্তে আওয়ামী লীগ জাতীয় পার্টিকে ছেড়ে দেয় গাইবান্ধা-১ আসন। এ কারণে নৌকার মনোনয়ন পেয়েও প্রার্থিতা প্রত্যাহার করতে হয় আফরুজা বারীকে। তিনি মনোনয়ন প্রত্যাহার করলেও মেয়ে নাহিদ নিগার স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নেন।

শেয়ার করুন-

মন্তব্য করুন

Protidiner Bangladesh

সম্পাদক : মুস্তাফিজ শফি

প্রকাশক : কাউসার আহমেদ অপু

রংধনু কর্পোরেট, ক- ২৭১ (১০ম তলা) ব্লক-সি, প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড) ঢাকা -১২২৯

যোগাযোগ

প্রধান কার্যালয়: +৮৮০৯৬১১৬৭৭৬৯৬ । ই-মেইল: protidinerbangladesh.pb@gmail.com

বিজ্ঞাপন (প্রিন্ট): +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ । ই-মেইল: pbad2022@gmail.com

বিজ্ঞাপন (অনলাইন): +৮৮০১৭৯৯৪৪৯৫৫৯ । ই-মেইল: pbonlinead@gmail.com

সার্কুলেশন: +৮৮০১৭১২০৩৩৭১৫ । ই-মেইল: pbcirculation@gmail.com

বিজ্ঞাপন মূল্য তালিকা