× ই-পেপার প্রচ্ছদ বাংলাদেশ রাজনীতি দেশজুড়ে বিশ্বজুড়ে বাণিজ্য খেলা বিনোদন মতামত চাকরি ফিচার চট্টগ্রাম ভিডিও সকল বিভাগ ছবি ভিডিও লেখক আর্কাইভ কনভার্টার

ভোটার টানতে আওয়ামী লীগ যেসব কৌশল নিচ্ছে

দীপক দেব

প্রকাশ : ১৯ ডিসেম্বর ২০২৩ ১৩:২২ পিএম

ফাইল ফটো

ফাইল ফটো

বিএনপিবিহীন নির্বাচনকে দেশি-বিদেশি সবার কাছে গ্রহণযোগ্য করতে ভোটার উপস্থিতির বিষয়টিকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে প্রচার কৌশল সাজিয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। প্রচারে এবার সনাতনী ব্যবস্থার পাশাপাশি আধুনিক তথ্যপ্রযুক্তির সমন্বয়ে বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতেও কাজ করার প্রস্তুতি নিয়েছে দলটি। পরিকল্পনা অনুযায়ী পদক্ষেপ নেওয়ার ফলে ভোটার উপস্থিতি সন্তোষজনক হারে থাকবে বলেও আশা করছে তারা। 

দলটির সংশ্লিষ্ট নেতারা জানান, ভোটার উপস্থিতির বিষয়টিকে গুরুত্ব দেওয়ার জন্যই এবার আওয়ামী লীগ স্বতন্ত্র প্রার্থীদের বিষয়ে ছাড় দিয়েছে। বিএনপিসহ কয়েকটি দল নির্বাচনে অংশ না নিলেও মানুষের সামনে যেন বিকল্প হিসেবে একাধিক প্রার্থী থাকে এবং ভোট নিয়ে আগ্রহ তৈরি হয়, সে জন্যই এটা করা হয়েছে। এবার দলীয় প্রচারে সরকারের উন্নয়ন ও স্মার্ট বাংলাদেশের কথা বেশি বেশি করে আসবে। ভোটারদের উদ্বুদ্ধ করতে একই সঙ্গে তরুণ সমাজের জন্য কর্মসংস্থান সৃষ্টির বিষয়টিকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেওয়া হবে। দলের প্রশিক্ষিত নেতাকর্মী ও সমাজের বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ ভোটারদের উদ্বুদ্ধ করতে হাটবাজার, ধর্মীয় ও সামজিক প্রতিষ্ঠানে গণসংযোগের পাশাপাশি বাড়ি বাড়ি যাবেন ভোট চাইতে। সারা দেশে প্রতিটি কেন্দ্রের বিপরীতে ৩০০ জন সদস্য নিয়ে একাধিক কমিটি গঠন করে এসব কাজ করা হবে। ৫০ শতাংশ ভোটার উপস্থিতিকে টার্গেট হিসেবে ধরে কাজ শুরু হলেও সব প্রতিবদ্ধকতা দূর করে ভোটারের হার ৩০ শতাংশ নিশ্চিত করতে পারলেই সেটাকে সন্তোষজনক মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। 

আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বিএনপি ও তাদের মিত্র দলগুলো নির্বাচনকে বাধাগ্রস্ত করতে ৭ জানুয়ারি ভোটের দিন পর্যন্ত চেষ্টা করে যাবে এমন আশঙ্কা তাদের রয়েছে। ধ্বংসাত্মক কর্মকাণ্ড চালিয়ে ভোটারদের মধ্যে ভীতি সঞ্চার করতে চেষ্টা চালাবে বিএনপি ও্ তাদের সমমনারা এমন তথ্যও রয়েছে। আর এটা করে বিরোধীরা দেশে-বিদেশে প্রচার চালানোর চেষ্টা করবেÑ এই ভোট নিয়ে সাধারণ মানুষের আগ্রহ নেই। এসব বিষয় মাথায় রেখেই আওয়ামী লীগ তার পরিকল্পনা সাজিয়েছে। সারা দেশে প্রতিটি আসনের জন্য পৃথক কেন্দ্রভিত্তিক কমিটি করা হয়েছে দলীয় প্রার্থীদের জন্য কাজ করতে। এখানে তরুণ ও যুবকদের নিয়ে যে কমিটি করা হয়েছে তারা প্রচারের পাশাপাশি নির্বাচন বানচালের সব ষড়যন্ত্র মোকাবিলায় জনগণের পাশে থেকে কাজ করবে। এর পাশাপাশি বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোট চাওয়া ও সাধারণ ভোটারদের কেন্দ্রে আসতে উদ্বুদ্ধ করার জন্য মুক্তিযোদ্ধা ও প্রবীণ নেতাদের নিয়ে একটা উপদেষ্টা পরিষদও করা হয়েছে, সেখানে এলাকার শিক্ষক, মসজিদের ইমাম, মোয়াজ্জিন, আলেম সমাজ, নারী স্বাস্থ্যকর্মীসহ যাদের এলাকায় পরিচ্ছন্ন ইমেজ রয়েছে তারা থাকবেন। এ ছাড়া কেন্দ্রের নারী ভোটারদের জন্য নারীদের নিয়ে পৃথক কমিটি করা হয়েছে। এরই মধ্যে সারা দেশে গঠন করা হয়েছে ৪০ হাজারের বেশি কেন্দ্রভিত্তিক কমিটি।

একই সঙ্গে এসব বিষয়ের জন্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের কনটেন্ট তৈরি করা হয়েছে ভোটারদের আকৃষ্ট করতে। এবার নতুন ভোটার বিশেষ করে তরুণদের আকৃষ্ট করতে কর্মসংস্থান সৃষ্টির বিষয়টিতে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। 

অপপ্রচার প্রতিরোধে কাজ করছে একাধিক সেল : ভোটার আকৃষ্ট করতে এবার নৌকার প্রার্থীদের জন্য অনলাইন-অফলাইন দুভাবেই কাজ শুরু হয়েছে। আওয়ামী লীগের গবেষণা সেল সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশনের (সিআরআই) পাশাপাশি আরও অন্তত তিনটি সেল এসব নিয়ে কাজ করছে। তথ্যপ্রযুক্তি জ্ঞানসম্পন্ন দক্ষ জনবলের পাশাপাশি সমাজের বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ এসব নেটওয়ার্কের সঙ্গে কাজ করছেন। সরকারের নেওয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের কোন বিষয়গুলো কখন কীভাবে তুলে ধরলে আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের জন্য ভালো হবে তার পরামর্শ ও তথ্য-উপাত্ত প্রস্তুত করে দেওয়া হচ্ছে এসব সেল থেকে। এ ছাড়া ভোটারদের বিভ্রান্ত করে ভোটকেন্দ্রে আসার বিষয়ে নিরুৎসাহিত করার ষড়যন্ত্রের পাল্টা জবাব ও পদক্ষেপ নেওয়ার বিষয়ে সহযোগিতা করতে এই সেলগুলো কাজ করছে। মিথ্যা ও বিভ্রান্তিকর গুজব ছড়িয়ে কেউ যেন ভোটের পরিবেশকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে না পারে, সেজন্য এসব উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে আওয়ামী লীগের সংশ্লিষ্ট সূত্র দাবি করেছে। 

এসব প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও নির্বাচন পরিচালনায় গঠিত মিডিয়া ও কমিউনিকেশন উপ-কমিটির সদস্য সচিব মোহাম্মদ এ আরাফাত সোমবার প্রতিদিনের বাংলাদেশকে বলেন, শুরু থেকেই ভোটার উপস্থিতির বিষয়টিকে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। ভোটার উপস্থিতির বিষয়টিকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়ে তা নিশ্চিত করতে আমরা প্রচারের পাশাপাশি ব্যবস্থাপনায় বেশি গুরুত্ব দিয়েছি। কারণ ভোটারদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে তাদের ভোটার নম্বরের স্লিপ পৌঁছে দেওয়াটা একটা বড় কাজ। আমাদের এখানে একটা বড় সমস্যা হয় ভোটাররা স্থানাস্তরিত হলে তার কোনো হিসাব ইসির কাছে থাকে না, ফলে তারা শুরুতেই অনুপস্থিত হয়ে যায়। এজন্য আমি মনে করি ৩০ শতাংশ ভোট কাস্ট হলে সেটা খুবই ভালো উপস্থিতি। 

তিনি বলেন, নির্বাচনী প্রচারের কাজে সহায়তা ও বিএনপি-জামায়াতের গুজব রুখতে এরই মধ্যে বেশ কয়েকটি সেল কাজ শুরু করেছে। এবার খুবই সায়েন্টিফিক পদ্ধতি ব্যবহার করে প্রচারের কাজ চালানোর পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। কেন্দ্রভিত্তিক কমিটি ও দলের সর্বস্তরের নেতাকর্মী ও সমর্থকরা এই কাজে যুক্ত থাকবেন বলেও জানান তিনি। ভোটের হার বৃদ্ধির ক্ষেত্রে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবেন বলেও মনে করেন তিনি। 

শেয়ার করুন-

মন্তব্য করুন

Protidiner Bangladesh

সম্পাদক : মুস্তাফিজ শফি

প্রকাশক : কাউসার আহমেদ অপু

রংধনু কর্পোরেট, ক- ২৭১ (১০ম তলা) ব্লক-সি, প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড) ঢাকা -১২২৯

যোগাযোগ

প্রধান কার্যালয়: +৮৮০৯৬১১৬৭৭৬৯৬ । ই-মেইল: protidinerbangladesh.pb@gmail.com

বিজ্ঞাপন (প্রিন্ট): +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ । ই-মেইল: pbad2022@gmail.com

বিজ্ঞাপন (অনলাইন): +৮৮০১৭৯৯৪৪৯৫৫৯ । ই-মেইল: pbonlinead@gmail.com

সার্কুলেশন: +৮৮০১৭১২০৩৩৭১৫ । ই-মেইল: pbcirculation@gmail.com

বিজ্ঞাপন মূল্য তালিকা