× ই-পেপার প্রচ্ছদ বাংলাদেশ রাজনীতি দেশজুড়ে বিশ্বজুড়ে বাণিজ্য খেলা বিনোদন মতামত চাকরি ফিচার চট্টগ্রাম ভিডিও সকল বিভাগ ছবি ভিডিও লেখক আর্কাইভ কনভার্টার

সাফ স্বপ্নযাত্রায় বাংলাদেশের মেয়েরা

প্রবা প্রতিবেদক

প্রকাশ : ০১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ২০:৫২ পিএম

মাঠের লড়াইয়ে নামার আগে ট্রফি নিয়ে বৃহস্পতিবার ফটো সেশনে অংশ নেন  চার দলের অধিনায়ক। প্রবা ফটো

মাঠের লড়াইয়ে নামার আগে ট্রফি নিয়ে বৃহস্পতিবার ফটো সেশনে অংশ নেন চার দলের অধিনায়ক। প্রবা ফটো

যেকোনো ক্রীড়া টুর্নামেন্টে বরাবরই বাংলাদেশের সামনে শক্ত প্রতিপক্ষ হয়ে দাঁড়ায় ভারত। সেটি বয়সভিত্তিক হোক কিংবা জাতীয় দল। তবে ভারত ছাপিয়ে সবশেষ কিছু বছরে বাংলাদেশের সামনে কঠিন প্রতিপক্ষ হিসেবে নিজেদের প্রমাণ করেছে নেপাল। গেল তিন বছরের মধ্যে নারীদের বয়সভিত্তিক টুর্নামেন্টেই তিনটি ফাইনালে মুখোমুখি হয়েছে দুই দল। ২০২২ সালে অনুষ্ঠিত সাফ অনূর্ধ্ব-১৭ পর্যায়ে বাংলাদেশকে কাঁদিয়েছিল নেপাল। সিনিয়রদের সাফে সেবার নেপালকে হারিয়েই চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলেন বাঘিনীরা। গত বছরের অনূর্ধ্ব-২০-এর ফাইনালে ঘরের মাঠে হিমালয়কন্যাদের ৩-১ গোলে উড়িয়ে দিয়েছিলেন শাহেদা আক্তার রিপা ও আকলিমা খাতুনরা। সেই একই মাঠে আগামীকাল শুক্রবার সাফ অনূর্ধ্ব-১৯ নারী চ্যাম্পিয়নশিপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে নেপালের মুখোমুখি হবে সাইফুল বারী টিটুর দল। 

বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে ম্যাচটি শুরু হবে সন্ধ্যা ৭টায়। এই মাঠে এর আগে বেলা ৩টায় টুর্নামেন্টের উদ্বোধনী ম্যাচে খেলবে ভারত ও ভুটান। দুটি ম্যাচই সরাসরি সম্প্রচার করবে বাংলাদেশ টেলিভিশন (বিটিভি)।

টুর্নামেন্ট শুরুর আগে বৃহস্পতিবার বাফুফে ভবনে হয়ে গেল সবকটি দলের আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলন। যেখানে সবার শেষে সাইফুল বারীর সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন দলের অধিনায়ক আফিদা খন্দকার প্রান্তি। যেকোনো টুর্নামেন্টের শুরুটা ভালো হলে পরের ম্যাচগুলো সহজ হয়ে যায়। শিরোপায় চোখ রেখেই তাই আপাতত প্রথম ম্যাচ নিয়ে নিজেদের ভাবনার কথা জানিয়েছেন আফিদা, ‘আমরা অবশ্যই চাইব শিরোপা দেশেই রাখতে। তার আগে আমাদের ম্যাচ বাই ম্যাচ ধরে খেলতে হবে। প্রথম ম্যাচটা আমরা জিতে দারুণ সূচনা করতে চাই।’ 

অনূর্ধ্ব-১৯ পর্যায়ের টুর্নামেন্ট হলেও আফিদার সিনিয়র দলে অভিষেক হয়েছে আরও আগেই। যে কারণে আর সবার থেকে তার অভিজ্ঞতা বেশি। তা ছাড়া নেপালের বিপক্ষেও খেলেছেন বেশ কয়েকটি ম্যাচে। সেটি মনে করিয়ে দিয়ে বললেন, ‘আমি আগেও নেপালের বিপক্ষে খেলেছি। জানি তাদের বিপক্ষে কীভাবে খেলতে হয়। আশা করি আমরা আমাদের মতো করে খেলেই জয় পাব।’ আফিদা নেপালের বিপক্ষে আগে খেললেও এটা মনে রাখতে হবে যে দলটা বয়সভিত্তিক। এই দলের প্রায় সব ফুটবলারই নতুন। অধিনায়ক বাদে তাদেরকে চেনারও সুযোগ পায়নি বাংলাদেশ। তাই এক ‘অচেনা’ নেপালের বিপক্ষেই খেলতে হবে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়নদের।

তা যতই অচেনা আর নতুন হোক না কেন, বাংলাদেশ দলের কোচকে এসব ব্যাপারে বেশ সতর্কই মনে হলো। সংবাদ সম্মেলনে আনুষ্ঠানিক বক্তব্য রাখতে বলাতে প্রথমে যেন কিছুটা চমকেই উঠলেন সাইফুল বারী। অথচ সংবাদ সম্মেলনে সব সময়ই বেশ গুছিয়ে কথা বলেন, কথা বলতে পছন্দ করেন তিনি। কিন্তু আজ যেন কথা বলার চেয়ে কাজেই বেশি মনোযোগী ছিলেন বলে মনে হলো। সেটি তার কথাতেই স্পষ্ট, ‘আমি তো সেদিন (গত ২৯ জানুয়ারি) একটা সংবাদ সম্মেলন করলাম? সেখানে তো আপনাদের সব প্রশ্নের উত্তর দিয়েছি। আজ তো নতুন আর কিছু বলার নেই।’ এরপর সাংবাদিকরা জোর করায় বললেন, ‘আসলে আমাদের প্রতিপক্ষ নিয়ে জানার সুযোগটা অত বেশি নেই। তারপরও ইউটিউব দেখে যতটা জানতে পেরেছি, সেভাবেই ‍ওদেরকে অনুশীলন করিয়েছি। তা ছাড়া দলটা বয়সভিত্তিক, ওদের সম্পর্কে জানার সুযোগ কম। আমরা সেসব বিষয় মাথায় রেখেই মাঠে নামব। আমাদের দলটাও নতুন। ওদেরকেও প্রতিপক্ষের চেনার সুযোগ নেই। এটাও আমাদের জন্য শক্তির জায়গা। এই দলটা কীভাবে খেলে, কেমন খেলে, সেটি আমাদের প্রতিপক্ষের জানার কথা নয়। আমরাই জানি, এই দলটা কেমন। দলে কয়েকজন নতুন মুখ আছে। আমার দল কেমন খেলবে, সেটি মাঠেই বোঝা যাবে। তবে আমরা প্রথম ম্যাচটা জিততে চাই।’

বয়সভিত্তিক দল হলেও নিজেদের নিয়ে বেশ আত্মবিশ্বাসী নেপালের কোচ। এই ম্যাচে বাংলাদেশ নাকি নেপাল ফেভারিট? প্রশ্নটি করার আগে বেশ কয়েকবার তিনি নিজেদের দলকেই এগিয়ে রাখলেন। বললেন, ‘অবশ্যই আমরা ফেভারিট। এখানে শিরোপা জিততে এসেছি। আশা করি আমরা আমাদের লক্ষ্য পূরণ করতে পারব।’ নেপালের অধিনায়ক সারাহ বাজারাচার্য জানিয়েছেন, টুর্নামেন্টের আগে খুব বেশিদিন প্রস্তুতি নেওয়ার সুযোগ হয়নি তাদের। তবুও আগামীকালকের ম্যাচে বাংলাদেশকে হারাতে আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, ‘আমরা হয়তো বেশিদিন প্রস্তুতি নিতে পারিনি। তবে আমরা কাল জিততে চাই। বাংলাদেশের বিপক্ষে আগেও খেলেছি আমরা। আমরা এ শিরোপাটাই জিততে চাই।’ 

বাংলাদেশ-নেপাল ম্যাচের আগে উদ্বোধনী ম্যাচে ডিফেন্ডিং রানার্সআপ ভারত প্রথম ম্যাচে পাচ্ছে ভুটানকে। স্বাভাবিকভাবেই এই ম্যাচ জিতে এগিয়ে থাকতে চাইবে দুই দল। রাউন্ড রবিন লিগ ম্যাচ বিধায় প্রথম ম্যাচ জেতার অর্থই হচ্ছে ফাইনালের পথে এক পা দিয়ে রাখা। ঘুরেফিরে দুই দলের কথাতেই উঠে আসে সেটি। বিশেষ করে ভারতের কোচের কথায় মনে হলো দল নিয়ে বেশ প্রস্তুতি সেরেই বাংলাদেশে এসেছেন তিনি। প্রতিপক্ষ ভুটান হলেও তাদেরকে সমীহই করেছেন ভারতীয় কোচ। তার কাছে কোনো দলই ফেভারিট নয়। নিজেদের চেয়ে প্রতিপক্ষকেই এগিয়ে রাখতে চাইলেন তিনি। তাহলে টুর্নামেন্টে ভারত আন্ডারডগ? এমন প্রশ্নে অবশ্য সেটি মানতেও অস্বীকার করলেন তিনি। আমরা সবাইকে ফেভারিট ভাবছি। বাকি তিনটি দলই কঠিন হবে। কিন্তু এর অর্থ এটাও নয় যে আমরা আন্ডারডগ।’ তাই এই ম্যাচ জিতে কে এগিয়ে যাবে সেটি জানার জন্য আপাতত অপেক্ষাই করতে হচ্ছে।


শেয়ার করুন-

মন্তব্য করুন

Protidiner Bangladesh

সম্পাদক : মুস্তাফিজ শফি

প্রকাশক : কাউসার আহমেদ অপু

রংধনু কর্পোরেট, ক- ২৭১ (১০ম তলা) ব্লক-সি, প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড) ঢাকা -১২২৯

যোগাযোগ

প্রধান কার্যালয়: +৮৮০৯৬১১৬৭৭৬৯৬ । ই-মেইল: protidinerbangladesh.pb@gmail.com

বিজ্ঞাপন (প্রিন্ট): +৮৮০১৯১১০৩০৫৫৭, +৮৮০১৯১৫৬০৮৮১২ । ই-মেইল: pbad2022@gmail.com

বিজ্ঞাপন (অনলাইন): +৮৮০১৭৯৯৪৪৯৫৫৯ । ই-মেইল: pbonlinead@gmail.com

সার্কুলেশন: +৮৮০১৭১২০৩৩৭১৫ । ই-মেইল: pbcirculation@gmail.com

বিজ্ঞাপন মূল্য তালিকা